সর্বশেষ সংবাদ
প্রচ্ছদ / রাজশাহী বিভাগ / ধুনটে মাদক চলছে কোন পথে?

ধুনটে মাদক চলছে কোন পথে?

কারিমুল হাসান লিখন, ধুনটঃ বগুড়ার ধুনট সদর ইউনিয়ন ও পৌরসভা থেকে উত্তর দিকে কিছু দিন আগেও পাকা সড়কের বিভিন্ন ব্রিজ, কালভার্ট ও সড়ক সংলগ্ন চা ষ্টলের পাশে মাদক বিক্রেতা ও সেবীদের আনাগনা দেখা যেত। ধুনট থানা পুলিশের নানা সময়ে মাদক বিরোধী অভিযানে মাদক বিক্রেতা ও সেবীগন পাকা সড়কে তাদের বানিজ্য থামিয়ে, গতিপথ পাল্টে বেছে নিয়েছে উপজেলার বিভিন্ন কাঁচা সড়ক গুলোকে। সরজমিনে দেখা যায়, এসকল কাঁচা সড়কের বেশির ভাই স্থান প্রায় জনশূন্য থাকার কারনে এটাই যেন মাদকসেবী ও ব্যবসায়ীদের রোড লাইন। সচরাচর দিনের বেলাতে ২/১জন কৃষক ছাড়া ওসকল স্থানে কাউকে দেখা যায়না। বিকেল থেকে সন্ধ্যার পর ওই সড়ক গুলো হয়ে ওঠে মাদক বিক্রেতা ও সেবীদের ভ্রাম্যমান আস্তানা। উপজেলার প্রতিটি ইউনিয়নেই নির্জন কাঁচা সড়ক গুলোতে কমবেশি মাদকসেবী ও ব্যবসায়ীদের আনাগনা রয়েছে। তারমধ্যে উপজেলার চাপড়া থেকে চিকাশী সড়কের
মাঝামাঝি হটিয়ারপাড়া সড়ক, চাপড়া বাজার থেকে নিত্তিপোতাসড়ক, সোনাহাটা বাজার থেকে পিড়াপাট নদী এলাকার সড়ক, উপজেলার নিমগাছী
ইউনিয়নের বমগাড়া বাজার, বিএনপি বাজার, লাংলু বাজার এলাকার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পাশের সড়ক, বেড়েরবাড়ী বাবু বাজার থেকে বুড়িভিটা সড়কের বাঙ্গালী নদীর খেয়াপার এলাকা, ধামাচামা থেকে জোড়গাছা সড়কের সাতবেকী কাঁচা সড়ক, নিমগাছী কমিউনিটি ক্লিনিক থেকে ঈশ্বরঘাট সড়ক,
নিমগাছী বাজার থেকে হেউটনগর সড়ক, আনারপুর থেকে কাদাই সড়কের
কালেরপাড়া নির্জন সড়ক, সোনামুয়া হাট থেকে কান্তনগর নয়াপাড়া ও
হাঁসাপোটল সড়ক, হাঁসখালীর ভীতর দিয়ে নান্দিয়ারপাড়া সড়ক, নলডাঙ্গা থেকে এলাঙ্গী সড়কের গ্রামীন ব্যাংক থেকে উত্তর দিকে খোকশাহাটা সড়ক। এসকল সড়কে মাদক ব্যবসায়ী ও সেবীদের আনাগনার পর প্রায়ই বিকেল থেকে রাত্রি পর্যন্ত প্রাচীর ঘেরা বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ভীতরে মাদকসেবীদের দেখা যায়। ৩/৪ জন করে দল বেঁধে তারা নির্জন সড়কে বসে থাকে। সাধারন মানুষ কলাহল ছেড়ে নির্জন সড়কের পাশে বসে একটু ক্লান্তি দুর করবে এ পরিবেশটাও থাকেনা এই মাদকসেবীদের কারনে। কিছু দিন আগেও নিজেদের পরিবার বা বন্ধুদের নিয়ে আনারপুর কাদাই সড়কে নির্জনের বসে বন্ধুদের সাথে সময় কাটাতো অনেকেই। এখন মাদকসেবীদের কারনে পরিচিত স্বজনদের নিয়ে বিকেলে আড্ডায় বসা তো দুরের কথা চলাচল করাই কঠিন হয়ে পড়েছে। এমন আরো সড়ক রয়েছে যেখানে সাধারন মানুষ ইচ্ছে করলেই মাদকসেবীদের কারনে যেতে পারেনা। ধুনট থানার অফিসার ইনচার্জ ইসমাইল হোসেন জানান, ধুনট থানা পুলিশ মাদক বিষয়ে যথেষ্ট তৎপর রয়েছে। নানা সময়ে মাদক বিরোধী অভিযানে মাদক ব্যবসায়ী ও সেবীরা কৌশল অবলম্বল করে ক্রয় বিক্রয় ও সেবন চালিয়ে যাচ্ছে। তাদের কৌশলগত পরিবর্তন হলেও আমাদের মাদক বিরোধী অভিযান অব্যহত থাকবে। একটি সুস্থ্য ও সুন্দর পরিবেশ ফিরিয়ে আনতে শুধু পুলিশ নয় সাধারন মানুষদের সচেতন হওয়ার পাশাপাশি প্রশাসনকে সহযোগিতা করতে হবে।

 

Advertisement

Check Also

  অনলাইন ডেস্ক ঃ বগুড়ায় স্থগিত ৪টি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে দুইটিতে আওয়ামী লীগ মনোনীত এবং …

Leave a Reply

Your email address will not be published.