সর্বশেষ সংবাদ
প্রচ্ছদ / রাজশাহী বিভাগ / শিবগঞ্জের দেউলী ভার্টিমর্চ বিলে প্রতিপক্ষের হামলায় আহত-১

শিবগঞ্জের দেউলী ভার্টিমর্চ বিলে প্রতিপক্ষের হামলায় আহত-১

 

বগুড়া প্রতিনিধিঃ বগুড়ার শিবগঞ্জের দেউলী ইউনিয়নের রহবল দক্ষিণপাড়া কাজিপাড়া গ্রামের খয়বর হোসেন খোকার ছেলে রাকিবুল ইসলাম রাকিব ভার্টিমর্চ বিল নামক স্থানে মাছ ও জায়গার দ্বন্দ্বে প্রতিপক্ষের হামলায় আহত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে। জানা যায়, গত শুক্রবার রাত আনুমানিক ১০.৩০ মিনিটে রহবল দক্ষিণপাড়া (কাজিপাড়া) গ্রামের খয়বরের ছেলে রাকিবুল ইসলাম রাকিব ভার্টিমর্চ বিল নামক স্থানে তাদের পত্তনি নেওয়া ৫৮ শতাংশ জমিতে মাছ চাষের জেরে ভার্টিমর্চ বিল নামক স্থানে পূর্ব থেকে ওৎপেতে থাকা কিছু দূস্কৃতিকারীরা পিটিয়ে আহত করে রাকিবকে। তারা রাকিবের পথ রোধ করে দেশীয় অস্ত্র-সস্ত্রে সজ্জিত হয়ে প্রাণে মেরে ফেলার উদ্দেশ্যে এ হামলা চালায়। হামলার সময় রাকিবুল দৌড়ে পালাতে গেলে পাশ্ববর্তী আমিনুরের জমিতে পড়ে যায়। পাশ্ববর্তী গ্রামের খাজা ও হারুন নামের দুই ব্যক্তি এ বিলে মাছ মারার সময় ডাক চিৎকার শুনে এগিয়ে আসলে দূস্কৃতিকারীরা পালিয়ে যায়। হামলায় রাকিবুল আহত হয়ে শিবগঞ্জ হাসপাতালে ভর্তি হয়। হাসপাতালে গিয়ে রাকিবের সাথে কথা বললে তিনি এ প্রতিবেদককে বলেন, আমি আমাদের পত্তনিকৃত জমিতে মাছ চাষের তদারকি করতে গেলে ভরিয়া গ্রামের জিন্নাহ্ মিয়ার ছেলে শাকিল ও শাফিনুরসহ অচেনা ২/৩ জন আমাকে হত্যার উদ্দেশ্যে হামলা চালায়। আমি অনেক কষ্টে পাশ্ববর্তী গ্রামের খাজা ও হারুন নামের ব্যক্তির সহায়তায় জীবন বাঁচিয়েছি। ইতোপূর্বে তারা তিন বান্ডিল নেট জাল, দুই মণ মাছ এবং পুকুরে ন্যাপথলি প্রয়োগসহ আমাদের বিভিন্ন ক্ষতি সাধণ করেছে এবং আমাদের বিভিন্ন সময়ে হত্যার হুমকি দেয়। আমি প্রশাসনের কাছে তাদের বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক শ্বাস্তি এবং ক্ষতিপূরণ দাবি করছি। বিষয়টি নিয়ে প্রতিপক্ষ শাকিল ও শাফিনুরের পিতা জিন্নাহ্ মিয়ার সাথে কথা বলতে গেলে তিনি দেখা করার জন্য পাকুরতলা বন্দরে তার দর্জির দোকানে যেতে বলেন। সেখানে গেলে জিন্নাহ্ মিয়া ফোন বন্ধ রেখে লাপাত্তা হয়ে যায়। এ বিষয়ে দেউলী ইউপি চেয়ারম্যার আব্দুল হাই প্রধান বলেন, বিষয়টি আমাকে এলাকার লোকজন জানিয়েছে। উভয় পক্ষের সাথে কথা বলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। এলাকার একাধীঁক যুবক জানায় রাকিব খুব ভালো ছেলে তাকে পরিকল্পিতভাবে হত্যার উদ্দেশ্য হামলা চালানো হয়েছে। এনিয়ে তাদের প্রায় ৪লক্ষ টাকার ক্ষতি সাধিত হয়েছে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত উক্ত বিষয়ে থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছিলো। তবে সচেতন মহল মনে করছেন প্রশাসনের নজরদারি ও জনপ্রতিনিধিদের উদাসীনতার কারণে মানুষের মধ্য অপরাধ প্রবণতা বৃদ্ধি পাচ্ছে। তবে নিজনিজ অবস্থান থেকে সবাই সচেতন হলে অপরাধ প্রবণতা কমে আসবে।

Advertisement

Check Also

  অনলাইন ডেস্ক ঃ বগুড়ায় স্থগিত ৪টি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে দুইটিতে আওয়ামী লীগ মনোনীত এবং …

Leave a Reply

Your email address will not be published.