নন্দীগ্রামে ভাটগ্রাম ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতির সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত

 

নন্দীগ্রাম (বগুড়া) প্রতিনিধিঃ বগুড়ার নন্দীগ্রামে ভাটগ্রাম ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি জুলফিকার আলী ফোক্কারের আয়োজনে সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। ১৫ই অক্টোবর বেলা ১১টায় কুন্দারহাট সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে এ সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। গত ১২ই অক্টোবর দৈনিক যুগান্তর পত্রিকায় “অনুপ্রবেশকারীদের দাপটে কোনঠাসা ত্যাগী নেতারা” শিরোনামে প্রকাশিত সংবাদে উপজেলার ভাটগ্রাম ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি জুলফিকার আলী ফোক্কারের নাম জড়িয়ে অসত্য ও মিথ্যা সংবাদ পরিবেশনের প্রতিবাদে এ সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এ সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে ভাটগ্রাম ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি জুলফিকার আলী ফোক্কার লিখিত বক্তব্যে বলেন, গত ১২ই অক্টোবর দৈনিক যুগান্তর পত্রিকায় প্রকাশিত ‘‘অনুপ্রবেশকারীদের দাপটে কোনঠাসা ত্যাগী নেতারা’’ শিরোনামে প্রকাশিত সংবাদে সম্পূর্ণ উদ্দেশ্য প্রণোদিতভাবে আমাকে জড়িয়ে মিথ্যা সংবাদ পরিবেশন করা হয়েছে। যা সম্পূর্ণ রকমভাবে আমাকে অপমান-অপদস্ত করার হীন চক্রান্ত বলেই আমি ধারনা করছি। আমার সাংগঠনিক কর্মকান্ডে ঈর্ষান্বিত হয়ে একটি মহল ক্রমাগত আমার নামে মিথ্যা প্রচারণা ছড়াচ্ছে। এরা নিজেরা জামায়াত, জাতীয় পাটি, জাসদ ও বিএনপি থেকে আওয়ামী লীগে প্রবেশ করে নিজেদের ক্ষমতা অটুট অক্ষুন্ন রাখতে ত্যাগী নেতাদের কোনঠাসা করার জন্য নানারকম মিথ্যার আশ্রয় নিচ্ছে। আমি উক্ত মিথ্যা ও বানোয়াট সংবাদের তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি। আমি ও আমার পরিবার বরাবরই আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে বিশ্বাসী। আমি কখনোই জামায়াতের রাজনীতির সাথে জড়িত ছিলাম না। আমি ২০১২ সালে আওয়ামী লীগের ইউনিয়ন কাউন্সিলের মাধ্যমে উপজেলা ও জেলার নেতৃবৃন্দের উপস্থিতি ও সর্বসম্মাতিক্রমে সভাপতি নির্বাচিত হই। ২০১৬ সালে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আমি দলীয় প্রার্থী হিসাবে নৌকা মার্কা নিয়ে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছি। বিগত ২০১৯ সালের উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ প্রার্থী রেজাউল আশরাফ জিন্নাহ’র পক্ষে ভোট করি। যার সত্যতা স্বয়ং উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান রেজাউল আশরাফ জিন্নাহকে জিজ্ঞেস করলেই জানতে পারবেন। ২০১৩ সালের ৩রা মার্চ সাঈদীকে চাঁদে দেখার গুজব কেন্দ্র করে আমার ইউনিয়নের জামায়াত জঙ্গি ও বিএনপি জোট সন্ত্রাস ভাংচুর লুটপাট অগ্নিসংযোগ ও রাস্তায় গাছ কেটে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করলে আমি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি হিসাবে তার প্রতিবাদ ও প্রতিরোধ করার চেষ্টা করি। পাশাপাশি আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে সহযোগীতা করার চেষ্টা করি। এ সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন, আওয়ামী লীগ নেতা আনোয়ার হোসেন, খোরশেদ আলম, আব্দুল হাকিম, হাবিবুর রহমান, আকরাম হোসেন, কায়জার আলম ও উপজেলা যুবলীগের সহ-সভাপতি এমআর জামান রাসেল প্রমুখ।

Leave a Comment

Your email address will not be published.


Notice: ob_end_flush(): failed to send buffer of zlib output compression (1) in /home/ajkersangbad/public_html/wp-includes/functions.php on line 5275

Notice: ob_end_flush(): failed to send buffer of zlib output compression (1) in /home/ajkersangbad/public_html/wp-includes/functions.php on line 5275