সর্বশেষ সংবাদ
প্রচ্ছদ / রাজনীতি / জনগণের ভালোবাসায় নৌকা জিতবেই: আতিক

জনগণের ভালোবাসায় নৌকা জিতবেই: আতিক

স্টাফ রিপোর্টার:

ঢাকা উত্তর সিটি নির্বাচনে জয়ের ব্যাপারে শতভাগ আশাবাদী আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী আতিকুল ইসলাম।

তিনি বলেন, ৯ মাস দায়িত্ব পালন করেছি। একটি দিনের জন্যও আমি বসে থাকিনি। এ বিষয়গুলো নাগরিকরা অবশ্যই মূল্যায়ন করবেন বলে মনে করি। তাছাড়া আমি যেখানেই (প্রচারে) গিয়েছি, সেখানেই মানুষের স্রোত দেখেছি। পথসভা আর পথসভা থাকে না, সেটা রূপ নেয় জনসভায়। যেখানে জনসভা করি, সেটি রূপ নেয় জনসমুদ্রে। তাই আমি মনে করি, আগামী পহেলা ফেব্রুয়ারি জনগণের ভালোবাসায় নৌকা জিতবেই জিতবে, ইনশাআল্লাহ।

বৃহস্পতিবার যুগান্তরকে দেয়া একান্ত সাক্ষাৎকারে আতিকুল ইসলাম এসব কথা বলেন। তিনি আরও বলেন, ৯ মাস যে টেস্ট পিরিয়ড ছিল, সেখানে আমি অভিজ্ঞতা অর্জন করেছি। নির্বাচিত হলে সেই অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগিয়ে সামনে এগিয়ে যাব। আমি আশা করব, নাগরিকরা আমার সঙ্গে সব সময় থাকবেন। আমরা সবাই মিলে সবার ঢাকা গড়ে তুলব। সেই ঢাকা হবে সুস্থ, সচল, আধুনিক ঢাকা।

১৯৬১ সালের ১ জুলাই নীলফামারীর সৈয়দপুরে জন্মগ্রহণ করেন আতিকুল। তবে তার পৈতৃক নিবাস কুমিল্লার দাউদকান্দি উপজেলায় (বর্তমান তিতাস উপজেলা)। পিতা মমতাজউদ্দিন আহমেদ ও মাতা মাজেদা খাতুনের ৬ মেয়ে ও ৫ ছেলের মধ্যে আতিক সবার ছোট। আতিকের এক ভাই তফাজ্জাল ইসলাম বাংলাদেশের ১৭তম প্রধান বিচারপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। আরেক ভাই অবসরপ্রাপ্ত লেফটেন্যান্ট জেনারেল মইনুল ইসলাম।

১৯৮৫ সালে ইসলাম গ্রুপ প্রতিষ্ঠা করার মাধ্যমে পোশাক খাতে ব্যবসা শুরু করেন আতিকুল। ২০১৩-১৪ মেয়াদে বাংলাদেশ পোশাক প্রস্তুতকারক ও রফতানিকারক সমিতির (বিজিএমইএ) সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। মেয়র আনিসুল হকের মৃত্যুর পরে ২০১৯ সালের ২৮ ফেব্রুয়ারি উপনির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়নে তিনি মেয়র নির্বাচিত হন। ব্যক্তিগত জীবনে ডেন্টাল সার্জন শায়লা সাগুফতা ইসলামের সঙ্গে বিয়ে বন্ধনে আবদ্ধ হন আতিক। এই দম্পতির এক কন্যা রয়েছে।

নিজের ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা প্রসঙ্গে উত্তর সিটির আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী আতিকুল ইসলাম যুগান্তরকে বলেন, ৯ মাস দায়িত্ব পালনকালে আমি নানা সমস্যা চিহ্নিত করেছি। সেসব সমস্যা সমাধানে পরিকল্পনাও গ্রহণ করা হয়েছে। প্রয়াত মেয়র আনিসুল হকের করা বাস ফ্র্যাঞ্চাইজি চালুর বিষয়ে দৃশ্যমান উদ্যাগ নেব। তার করা ইউলুপ প্রকল্পের কাজ বন্ধ আছে। এটিও এ বছরের মধ্যে চালু করা হবে। গণপরিবহনগুলোকে শৃঙ্খলার মধ্যে আনতে হবে। এজন্য আমার ঢাকা নামে একটি অ্যাপ তৈরি করে এর মাধ্যমে বাসের টিকিট বিক্রির প্রথা চালু করা হবে। পরিবহনের একাধিক মালিকানা বাতিল করে কয়েকটি কোম্পানিতে করা হবে। সেখানে পরিবহন ব্যবসায়ীদের জন্য শেয়ার বিক্রি করা হবে।

দ্রুত যানজট সমস্যার সমাধান করা হবে জানিয়ে আওয়ামী লীগের এই মেয়র প্রার্থী বলেন, দায়িত্ব নেয়ার তিন মাসের মধ্যেই যানজট নিরসনের উদ্যাগ নেব। যদিও যানজট এ শহরের বড় চ্যালেঞ্জ। তবুও সবাইকে নিয়ে যানজট সমস্যা দ্রুত সমাধান করব। উত্তর সিটি কর্পোরেশনের সব যানজটপূর্ণ এলাকায় ইউলুপ তৈরি করা হবে।

তিনি আরও বলেন, নির্বাচিত হলে ঢাকার দীর্ঘদিনের সব সমস্যা দূর করা হবে। এর মধ্যে ফুটপাত, এলইডি লাইট, ড্রেনেজ, রাস্তাসহ আধুনিক পরিকল্পিত বাসযোগ্য ঢাকা গড়ার কাজ ৬ মাসের মধ্যে শুরু করা হবে। তিনি আরও বলেন, সিটি কর্পোরেশনকে জবাবদিহির মধ্যে আনতে চাই। সুন্দর-নিরাপদ আধুনিক ও স্মার্ট ঢাকা গড়তে চাই। নগরে ৪২ হাজার এলইডি বাতি লাগানো হবে। ইতিমধ্যে তা একনেকে পাস হয়েছে। সেই সঙ্গে থাকবে সিসি ক্যামেরা। অলিগলি সব জায়গা আলোকিত হবে।

আতিকুল ইসলাম বলেন, আমি জানি, ঢাকা আপনার, আমার, সবার। আমাদের একটু সচেতনতা এবং কিঞ্চিৎ সহযোগিতা এই নগরীর প্রাপ্য। যদি আমরা সবাই একটু সচেতন, আন্তরিক ও উদ্যোগী হয়ে দৃষ্টিভঙ্গি প্রসারিত রাখি, শহর বিনির্মাণে অংশ নিই; তবে অবশ্যই ঢাকা উত্তরে দৃশ্যমান পরিবর্তন আসবেই।

তিনি আরও বলেন, এই পথযাত্রায় আমি নগরবাসীর সঙ্গে একাত্ম হয়ে কাজ করতে চাই। বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অপ্রতিরোধ্য অগ্রযাত্রায়, স্বপ্নের ঢাকাকে বাস্তব করতে কাজ করতে চাই।

ভোট নিয়ে শঙ্কা প্রসঙ্গে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমরা শুনতে পারছি, এই গণজোয়ারে ঈর্ষান্বিত হয়ে প্রতিপক্ষ বাইরে থেকে ভাড়াটে লোক নিয়ে এসে ভোটকেন্দ্রে গণ্ডগোলের পাঁয়তারা করছে। তবে নৌকার পক্ষে গণজোয়ার বইছে। কোনো অপশক্তি এই গণজোয়ার রুখতে পারবে না।

তিনি আরও বলেন, কারণ নৌকার কোনো ‘ব্যাকগিয়ার’ নেই। নৌকার একটাই গিয়ার। আর তা হল উন্নয়নের গিয়ার। নৌকা আমাদের দিয়েছে স্বাধীনতা। নৌকা দিয়েছে উন্নয়ন। তাই এই নির্বাচনে নৌকার বিজয় হবেই হবে, ইনশাআল্লাহ।

দলীয় নেতাকর্মী, সমর্থক ও সাধারণ জনগণসহ সবাইকে ভোটকেন্দ্রে গিয়ে ভোট দেয়ার আহ্বান জানিয়ে আতিকুল ইসলাম বলেন, নির্বাচনে যত বেশি ভোটার আসবেন, নৌকায় ততবেশি ভোট পড়বে। সবাই ভোটের আমেজ নিয়ে উৎসবমুখর পরিবেশে ভোট দেবেন। নৌকাকে জয়যুক্ত করবেন।

Advertisement

Check Also

নন্দীগ্রাম উপজেলা ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে ঈদুল আযহার শুভেচ্ছা জানিয়েছেন আবু তৌহিদ রাজিব।

আব্দুল আহাদ,নন্দীগ্রাম : পবিত্র ঈদুল আযহা” উপলক্ষ্যে নন্দীগ্রাম উপজেলা ও পৌর বাসীর সর্বস্তরের সাধারণ মানুষ, …

Leave a Reply

Your email address will not be published.